স্মৃতিচারণ ১ : 

স্মৃতিচারণ ১ :
তখন আমার বয়স ৪ এর কাছাকাছি । প্রায় প্রতিদিন মাগরিবে মসজিদে নামাজে যেতাম । যদিও আমি একটু হাঁটা শিখার পর থেকেই আব্বু প্রতি নামাজে মসজিদে নিয়ে যেতেন শুনেছি । তখন আমি নামাজ পড়তাম না । পিছনে বসে নামাজ পড়া দেখতাম ।

আমাদের মসজিদে তখনো বিদ্যুৎ ছিল না । মসজিদের মাঝখানে একটা বড় পাখা ছিল যেটা বাশের সাথে বেধে রাখা ছিল – একটা দড়ি দিয়ে টানতে হতো । যখন অন্যপাশ ঘুড়ে এই পাশে পাখা আসত অনেক বাতাস হত । নামাজ শেষে আব্বু বন্ধুদের সাথে গল্প করতেন আমি সহ । ছোট ছিলাম বলে সবাই খুব স্নেহ করতেন। আমার খুব মন চাইত ঐ দড়ি ধরে আমি সবাইকে বাতাস করব ।কিন্তু সুযোগ পেতাম না । একদিন আব্বু খানিকটা ক্লান্ত হয়ে গেলে দড়ি টানা বদ্ধ রাখলেন । আমি দড়ি টানার জন্য দড়িতে হাত দিলাম । সবাই হেসে উঠল । আব্বু তখন বললেন ও তুমি সবাইকে বাতাস করবে ? আমি মাথা নাড়ালাম ।

আমি দড়ি ধরে কয়েকবার টান দিয়ে ক্লান্ত হয়ে গেলাম । খুব অল্পই বাতাস হল । কিন্তু সবাই অনেক বেশি খুশি হল ।

মিছে জীবন

life story

*কাল বাড়ি যাব , জানিনা কেন যাব ।
 
*প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে জেগে উঠি , কেন জাগলাম তার কোন অর্থই খুজে পাই না , তবু দিন শেষ হয় নতুন সকাল দেখি ।
 
* অফিস শেষে রুমে আসতে ৯ টার মত হয়ে যায় , গলির মসজিদটা অনেক রাত পর্যন্ত খোলাই থাকে ।কেউ থাকে না । নিস্তব্ধতা আমার খুবই প্রিয় ।
 
* অফিসে যাওয়ার সময় রিক্স করেই যায় , যদিও এজন্য ২০০ টাকার মত ভাড়া দিতে হয় কিন্তু আমি বই পড়তে পড়তে যায় । মাঝে মাঝে আকাশ দেখি , চোখ বন্ধ করে বাতাস অনুভব করি । জীবন সুন্দর ।
 
* আমার জীবনে আমি কিছু চেয়ে কোন দিন কিছুই পায়নি , এ নিয়ে আমার অভিযোগ নেই । ভাবি পেলেইবা কি হত । যে গতিপথ প্রভুর দেওয়া , যে ধারা আমার রবের দেওয়া , হোকনা তেমন যেমন তিনি চান ।
 
* আমি জানি আল্লাহ আমাকে একদিন অনেক টাকার মালিকানা করে দিবেন । আমি ২ টা কওমি মাদ্রাসা করব ইনশা- আল্লাহ । আমিই হব প্রথম ছাত্র ।
 
* চোখের ডাক্তার দেখিয়েছি , আগের চেয়ে চশমার পাওয়ার বেড়েছে । যদিও ভার্সিটিতে নিয়মিত পরতাম সখের বশেই । কেন যে বাদ দিয়েছি জানি না । এখন চোখ দিয়ে প্রায়ই পানি পড়ে ।
 
* ২০১৭ ছিল আমার ক্যালেন্ডার ময় । টার্গেট ও পুরন । ক্যারিয়ারের জন্য খুবি গুরুত্ব্যপুর্ন একটা বছর । সফতাও অনেক । অনেক সুযোগ এসে চলে গেছে কিন্তু অনেক সম্ভাবনার পথ তৈরি করে গেছে ।
২০১৭ আর পাব না ।
 
* ২০১৭ আমার হারানোরও বছর । আমি কত অযোগ্য তাও জেনেছি ।
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
***** মাঝে মাঝে খুবি কাঁদতে ইচ্ছা হয় , কাঁদি না । একদিন কাঁদব । অনেক অনেক । ভ্যাভ্যা করে কাঁদব । নোনা জ্বলে দেখব আমি হাসির ঝিলিক । *****